Main Menu

অসহায় মানুষের পাশে ইউপি চেয়ারম্যান সোহেল রানা

বাংলাদেশ সরকারের সিদ্ধান্ত এবং নির্দেশনা মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়নে সবচেয়ে বড় দায়িত্ব পালন করতে হয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের। কোন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান যদি সৎ হয়, তাহলে সম্পদের অপ্রতুলতা থাকলেও সাধারণ মানুষ অনেকটাই শান্তিতে থাকেন। এমন সৎ, নিষ্ঠাবান ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হিসেবে ইতিমধ্যে প্রমাণ করেছেন ঢাকার সাভার উপজেলার সাভার সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী মোঃ সোহেল রানা।

করোনাকালে রাতের আধারে অসহায় মানুষের  ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মোঃ সোহেল রানা।

 

তিনি সাভার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই এই ইউনিয়নকে একটা শক্ত ভিত্তির ওপর দাঁড় করাতে তিনি সাভার ইউনিয়ন থেকে সন্ত্রাস ও মাদক নির্মূলে সর্বোপরি দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস (কোভিট-১৯) সারা বিশ্বে এক আতঙ্কের নাম। বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশই এ ভাইরাসের সংক্রমণ থামাতে লকডাউনের পথে হাঁটলেও পরিকল্পিতভাবে এর তাণ্ডব দমাতে পেরেছে খুব কম দেশিই। গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে এ ভাইরাস শনাক্ত হয় এবং বাংলাদেশ সরকার ২৬ মার্চ থেকে দেশে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করলে কর্মহীন হয়ে পড়ে লক্ষ লক্ষ মানুষ। মধ্য নিম্নবিত্তদের ঘরে ঘরে দেখা দেয় আর্থিক সঙ্কট।

করোনাকালে সাভারের কলমা স্কুল মাঠে খাবার বিতরণ করেন ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মোঃ সোহেল রানা

ঠিক এমন সময় দেশের বহু বিত্তবান হাত গুটিয়ে বসে থাকলেও কিছু মানুষ তাদের সহযোগিতার হাত খোলা রেখেছেন ঠিকই। তাদের উদ্দেশ্য আত্মপ্রচার নয় তারা মানবতার সেবায় নীরবে-নিভৃতে সাধারণ মানুষের সহযোগিতা করে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। এই মানবতার ফেরিওয়ালা ইতিমধ্যেই জনদরদি বলে খ্যাতি লাভ করেছেন জনসাধারণের কাছে। করোনা সংক্রমনের প্রথম দিক থেকেই নিজের জীবন বাজি রেখে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন এই মানবতার ফেরিওয়ালা ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মোঃ সোহেল রানা।

সোহেল রানা

অসহায় মানুষের পাশে খাবার নিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান হাজী মোঃ সোহেল রানা।

এছাড়াও তিনি, করোনাকালে মাক্স, স্যানিটাইজার, খাদ্যসামগ্রী, চাউল,ডাউল,তেল,লবণ, কাপড়-লুঙ্গি, নগদ অর্থ বিতরণ সহ লকডাউনের সময় যারা খেতে পারবে না তাদের ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দিয়েছেন। করোনা সংক্রমনের শুরু থেকেই প্রতিদিন নতুন উদ্যোগ আর নতুন চিন্তা ভাবনায় সরকারি সহায়তার পাশাপাশি ব্যক্তিগত উদ্যোগে ইউনিয়নবাসীর পাশে ছিলেন এই নেতা। করোনা মোকাবেলা ও সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে তিনি ইউনিয়নের সাধারন মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়েছেন। শুধু মিটিং বা নির্দেশনার মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিলেন না তিনি সম্মুখযুদ্ধে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নিজেই নেমে পড়েন পথে ঘাটে এবং এখনো পর্যন্ত সচেতন করে যাচ্ছেন সাধারণ মানুষকে। করোনাকালে মানবতার সেবায় নিয়োজিত মানবিক চেয়ারম্যান হাজী মোঃ সোহেল রানা বলেন,করোনার শুরু থেকেই যা কিছু করেছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ অনুযায়ী এবং ঢাকা-১৯(সাভার-আশুলিয়া) আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য ডাঃ এনামুর রহমান এমপির দিক নির্দেশনা ছিল অসহায় সাধারণ মানুষের পাশে থাকার। তাদের পাশে আছি এবং থাকব এই ধারাবাহিকতা যেন এই দুর্যোগে অবশ্যই অব্যাহত রাখতে পারি। আমি বিশ্বাস করি দেশের যে কোনো দুর্যোগ পরিস্থিতিতে বর্তমান সরকার ও আওয়ামী লীগ সাধারণ মানুষের পাশে আগেও ছিল বর্তমানে আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। সর্বশেষে আমি আমার ইউনিয়নের সাধারণ মানুষের পাশে থেকে ভবিষ্যতেও সেবা করে যেতে চাই।






error: কপি করা নিষেধ !!
%d bloggers like this: