সোমবার, ১৪ Jun ২০২১, ০২:২৫ অপরাহ্ন

শিরোনাম:

Welcome To Our Website...

সাভারে মসজিদের পুকুরে বিষ দিয়ে মাছ মেরে দখলের চেষ্টা

সাভারে মসজিদের পুকুরে বিষ দিয়ে মাছ মেরে দখলের চেষ্টা

বিশেষ প্রতিনিধি: সাভারে মসজিদের পুকুরে বিষ দিয়ে মাছ মেরে পুকুর দখলের চেষ্টা করেছে চিহ্নিত ভূমিদস্যু ও তার সহযোগীরা। বৃহস্পতিবার ভবানিপুর দক্ষিনপাড়া জামে মসজিদের দখলে থাকা পুকুরটিতে বিষ প্রয়োগ করে মাছ মেরে দখলের চেষ্টা করে ভূমিদস্যু নুরুজ্জামান ও তার ক্যাডার বাহিনী।

এঘটনায় শুক্রবার জুমার নামাজের পরে স্থানীয়ভাবে শালিস বসে। এ সময় ভবানীপুর গ্রামের হানিফ মিয়ার ছেলে নুরুজ্জামানের নেতৃত্বে ওই গ্রামের কেরালীর ছেলে জলিল মিয়া, ভোলা মিয়ার ছেলে আমজাদ মিয়া, আব্দুর রহিমের ছেলে জাকির হোসেন, জলিল মিয়ার ছেলের জুয়েলে রানা হামলা চালায় শালিসে আসা লোকদের উপর। এসময় গুরুতর আহত হন শরিফ, আরিফ, আশরাফুল ও সাদ্দাম হোসেনসহ বেশ কয়েকে জন। এঘটনায় পর থেকে নুরুজ্জামান ও তার ক্যাডার বাহিনীর সদস্যরা আত্ম-গোপনে রয়েছেন।
স্থানীয়রা জানান, প্রায় শত বছর ধরে মসজিদের ভোগ দখলে থাকা ১‘শ শতাংশের খাস খতিয়ানের পুকুরটিতে মসজিদ কমিটির পরিচালনায় মাছ চাষ করে আসছিল। কমিটি গত কয়েক বছর ধরে পুকুরটি স্থানীয় যুবক সাদ্দাম হোসেনের কাছে মাছ চাষের জন্য লিজ দেয়। তার পর থেকে নিয়মিত মাছ চাষ করে আসছিলেন। পরে বৃহস্পতিবার নুরুজ্জামান তার দলবল নিয়ে হঠাৎ পুকুরে এসে সরকারের কাছ থেকে পুকুর তার নামে লিখিয়ে নিয়ে এসেছেন বলে দাবী করেন এবং পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে চলে যান। বিষ দিয়ে মাছ কেন মারা হয়েছে এবিষয়ে মাছ চাষী সাদ্দাম হোসেন মসজিদ কমিটির কাছে জানতে চান। পরে শুক্রবার স্থানীয়ভাবে শালিস ডাকা হয়। কিন্তু শালিস শুরু হওয়ার আগেই উপস্থিত লোকজনের উপর হামলা চালায় নুরুজ্জামান ও তার ক্যাডার বাহিনী।
মাছ চাষী সাদ্দাম হোসেন জানান, ওই পুকুরটিতে ১লক্ষ ৬০ হাজার টাকার মাছের পোনা ছেড়েছিলেন তিনি। কিন্তু নুরুজ্জামান ও তার ক্যাডার বাহিনী বিষ দিয়ে মাছ গুলো মেরে ফেলায় তার ক্ষতি হয়েছে প্রায় ৫লক্ষ টাকার। তিনি জানান যেহেতু স্থানীয় ভাবে বিচার চেয়ে হামলার শিকার হয়েছি তাই এখন আর আইনের আশ্রয় নেয়া ছাড়া কোনো উপায় নেই । যে কোনো সময় তার উপর আবারও হামলা চালাতে পারে ওই সন্ত্রাসী বাহিনী বলেও শঙ্কায় রয়েছে তিনি।
এব্যপারে মসজিদ কমিটির সভাপতি মালে হোসেন ও সেক্রেটারী দীন ইসলাম বলেন, আমাদের মসজিদের পক্ষে থেকে পুকুরটি লিজ দিয়ে যে টাকা আসে তা মসজিদের রক্ষনা-বেক্ষনে ব্যয় করা হয়। হঠাত করেই আমাদের কে কোনো কাগজপত্র না দেখিয়ে নুরুজ্জামান তার দলবল নিয়ে পুকুরটি তার বলে দাবি করে ও বিষ দিয়ে মাছ মেরে ফেলে। আমরা শালিস ডাকলেও তাতে সে কর্ণপাত না করে উল্টো মসজিদের স্বার্থে কথা বলা লোকদের উপর হামলা চালায়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2019

Design BY POPULARHOSTBD