শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০৪:৩৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম:

Welcome To Our Website...

মামা ও ভাগীনা আঙ্গুরের প্রতারণার জালে মামি সর্বশান্ত; আদালতে মামলা

মামা ও ভাগীনা আঙ্গুরের প্রতারণার জালে মামি সর্বশান্ত; আদালতে মামলা

আশুলিয়ার বেরন এলাকার মানিকগঞ্জ পাড়ার আদু খানের ছেলে মনুরউদ্দিন ওরফে মনির খানের স্ত্রী তানিয়া সুলতানা নির্যাতন ও যৌতুকের অভিযোগ এনে ১৮/০৯/১৯ইং তারিখে ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে একটি মামলা দায়ের করেন।

ভুক্তভ’গী তানিয়া সুলতানা অভিযোগ করে বলেন আমি আসামী মনির খানের সাথে ২৮ বছর যাবৎ সংসার করে আসছি, সে আমাকে ও আমার ছেলে মেয়েকে প্রায় মারধর করতো, এবং বিভিন্ন সময় আমার বাবা বাড়ি থেকে টাকা এনে দিতে জোড় করতো, এযাবৎ তাকে আমার নামে জমি কেনার জন্য এককালিন তিন লক্ষ টাকা এনে দেই কিন্তু সেই জমি প্রতারনা করে তার নামে দলিল করে নেয়। এবং কিছুদিন পরে উক্ত জমিতে ঘড় করার জন্য ও বিদেশ যাওয়ার জন্য পাচ লক্ষ টাকা এনে দেই। সেই টাকা দিয়ে সে বেরন এলাকায় ঐ জমিতে বাড়ি তৈরি করে ও কুয়েত চলে যায়। বিদেশ যাওয়ার পরে সামান্য সংসার খরচ দিলেও গত চার বছর যাবৎ কোন ভরন পোষণ দেয়নি, এছাড়াও বিদেশ থেকে মাঝে মাঝে দেশে আসলেও আমার সাথে অসজৌন্য ব্যাবহার করতে থাকে। তার পরেও আমি ধৈর্যধারন করে থাকি। ইতিমধ্যে আমার স্বামীর বোন, বোন জামাই ও ভাগনে আঙ্গুর আমাকে ও আমার সন্তানদের বিনাকারনে আমার সংসার নষ্ট করার হুমকি প্রদান করে ও আমার স্বামীকে অন্যত্রে বিয়ে করাইবে বলে জানায়। এই হুমকির বিপরিতে আশুলিয়া থানায় একটি সাধারন ডাইরী নং-২১৮৮- করি ২৯/০৭/২০১৯ইং তারিখে। ০৩/০৮/২০১৯ ইং তারিখ সর্বশেষ আমার স্বামী দেশে আসলে, কিছুদিন পরে হঠাৎ করে আমাকে বাসা থেকে বের হয়ে যেতে বলে। আমি রাজি না হলে আমাকে মারধর করে, এতেও আমি রাজি না হলে ভাড়াটিয়া মাস্তান নিয়ে এসে আমাকে হুমকি প্রদান করে। এ ঘটনায় আমি ভয়ে পুর্বের জি,ডি নং-২১৮৮ এর সত্যতার বরাত দিয়ে আশুলিয়া থানায় আরো একটি সাধারন ডাইরি নং-৮৫২ করি ১১/০৯/১৯ইং তারিখে।
এ সমস্ত ঘটনায় খোজ নিয়ে পরে জানতে পারি তার ভাগীনা আমিনুল ইসলাম আঙ্গুরের সহযোগীতা ও ইন্দোনে সে গোপনে চার,পাচটা বিবাহ করেছে। এছাড়াও আরো জানতে পারি আমার স্বামী ও তার ভাগীনা একই সাথে বিভিন্ন সময়ে অল্পবয়সী মেয়েদের নিয়ে রাত্রী যাপন করতো। এখন সে সরাসরি আমাকে রাখবেনা ও বাসা থেকে বের হয়ে যেতে বলছে। এমত অবস্থায় আমি খুবই অসহায় হয়ে পরেছি। যার পরিপ্রেক্ষিতে সর্বশেষ কোর্টে আমার উপর এসকল নির্যাতন ও আমার থেকে যৌতুকের টাকা নেয়ার বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করি।উক্ত মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হলেও সে এখনো বাহিরে দাপটের সাথে ঘোরাফেরা করছে এতে আমি খুবই আতংঙ্কে আছি। মনির যেকোন সময় আমার এবং আমার সন্তানদের উপর পূর্বের ন্যায় সন্ত্রাসী হামলা করতে পারে। তাই আমি প্রশাসনের কাছে সাহায্য চাচ্ছি, খুব তারাতারি যেন তাকে গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনা হয়।

অভিযুক্ত মনুরউদ্দিন ওরফে মনির খানের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাকে কোন ভাবেই পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে প্রধান আসামির সহযোগী ভাগনে আমিনুল ইসলাম আঙ্গুরের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে সে জানান উক্ত মহিলাকে অসহায় হিসেবে আমার মামা আশ্রয় দেন। তার ও তার মামার বিরুদ্ধে করা মামলা ও অভিযোগের সত্যতা জানতে চাইলে সে ক্ষিপ্ত হয়ে বলে এ ব্যাপারে আপনাদের কেন বলবো। নিউজে তার বক্তব্য তুলে ধরার কথা জানালে, সে বলে মামলা হয়েছে মামলা লড়বো এরকম দু”চারটা মামলা কোন বিষয় না, এবং আমাদের পরিচিতি কম আপনারা নিউজ করলে আমাদের পরিচিতি বাড়বে।

এ ব্যাপারে আশুলিয়া থানার এস,আই আঃ জলিল জানান বিষয়টি আমার জানা আছে, তানিয়া বেগম ১১/০৯/২০১৯ ইং তারিখে আশুলিয়া থানায় মনির ও আঙ্গুরকে বিবাদি করে একটি সাধারন ডায়েরী করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে তাদেরকে এ ব্যাপারে বার বার থানায় ডাকা হলেও তারা আসেনি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2019

Design BY POPULARHOSTBD